1. dailyamarkothabd@gmail.com : admin :
  2. hmhabibullah2000@gmail.com : Habib :
  3. sabbirmamun402@gmail.com : Sabbir :
যে গল্প মিশে রয়েছে হৃদয়ের এককোণে - দৈনিক আমার কথা
শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০:৩১ পূর্বাহ্ন
শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০:৩১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :

যে গল্প মিশে রয়েছে হৃদয়ের এককোণে

ক্যাম্পাস প্রতিনিধি :
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৯ মে, ২০২৪

যে গল্প আজও ছাপা হয়নি বইটির পাঠ প্রতিক্রিয়া :

নন্দিত কথা সাহিত্যিক সেলিম হাসান। তিনি কলমে হৃদয়ের কথা বলা শুভ্র মানুষ যার লেখাতে জাদু আছে। আছে বাস্তবতা তিক্ত সত্য লাইন-বাক্য। তাঁর লেখা ভালোলাগার অন্যতম কারণ হলো তাঁর সাদামাটা ও ঝরঝরে লেখা। তাঁর প্রতিটি লেখা গিয়ে রেখা টানে মনের অতল গহীনে।সত্যের পথে সহজ সুন্দর সাবলীল ও প্রাঞ্জল ভাষা তাঁর লেখাকে পাঠক প্রিয় করছে অবিরত। আমার প্রথম পড়া এই লেখকের দ্বিতীয় বই ‘প্রতিটি রাতই ভয়ংকর ছিল’ বইটি সামাজিক থ্রিলার। বইটি পড়ে ভীষণ মুগ্ধ হই, সাদামাটা গল্প কিভাবে ভাবনায় মিশে যায় তখনই টের পেয়েছি। বইয়ের প্রতিটি চরিত্র বাস্তব মনে হয়েছে। এখন কথা বলা যাক নতুন বইটি নিয়ে। টুকটাক ফেসবুকে নতুন বইয়ের খবর শুনেই বইটি উইশলিস্টে রেখেছিলাম ঠিক সেইসময় দেখতে পাই বইটি নাকি রোমান্টিক জনরার। রোমান্টিক বই খুব বেশি পড়া হয়না তবে সেলিম হাসানের লেখার সঙ্গে পরিচিত থাকার কারণে বইটি প্রথমদিকেই প্রি-অর্ডার করি। বরাবরের মতো এই বইটির অনবদ্য লেখা আমায় ভীষণ মুগ্ধ করে। “যে গল্প আজও ছাপা হয়নি” বইটি আমার মনে গেঁথে গেছে রয়েছে। বইটি সোনালী সময়ে গল্প নিয়ে রচিত হয়। যারা যান্ত্রিক জীবনের চেয়ে নব্বুইয়ের দশকের জীবনকে পছন্দ করে৷ মিস করে সোনালী অতীত, চিঠির দিনগুলোর কথা বইটি তাঁদের জন্য বেস্ট হবে। যেমন আমার কাছে আমার পড়া বইগুলোর মধ্যে এই বইটি অন্যতম।
শুভ্র উপন্যাসের প্রধান চরিত্র। যাকে ঘিরে এই বইটি। শুভ্রর প্রতি কেন জানিনা আলাদা একটা ভালোলাগা কাজ করছে গল্পটা পড়ে। তার বলা কথা,চিঠি,দায়িত্ব, বিবেকবোধ আলাদা ভাবে তাঁর প্রতি মুগ্ধ করেছে। দায়িত্বের কাছে সে অটল, ভালোবাসার কাছে সে স্নিগ্ধ। এককথায় অসাধারণ একটা চরিত্র।
বইটি পড়ার সময় নিরুপমার প্রতি হিংসা হচ্ছিল। উপন্যাসের প্রধান আর এক চরিত্র। শুভ্রর প্রেমিকা।যার চরিত্রটা আমার খুব ভালো লেগেছে। নিরুপমা ত্যাগ স্বীকার করেনি। সে জয়ী ভালোবাসার কাছে। তার বলা শেষ কথাটা মনে দাগ কেটে যায়। তার চরিত্রটাও এককথায় অসাধারণ ছিল। এ মা গল্পের শুরু টা হয় মিহিতা কে ঘিরে আর তাঁর সম্পর্কে বলতেই ভুলে গেছি—মিহিতা উপন্যাসের অন্যতম একটি চরিত্র যার অতি আগ্রহের জন্যই পুরো গল্পটা এতো সুন্দর ভাবে ফুটে উঠেছে। মিহিতার জন্য বইটির প্রতি আগ্রহ দ্বিগুণ বাড়িয়ে যায়। মা -বাবা হারা মেয়ে। যে প্রথম ফুলতলী রেলওয়ে স্টেশনে শুভ্রকে দেখে এবং তার বিষয়ে আগ্রহ দেখায়।
মিহিতার চরিত্রটা আমার খুবই ভালো লেগেছে। পুরো গল্পটাতে তার চরিত্রটা খুবই সুন্দর ছিল। যেহেতু বইটি ১৪৪ পৃষ্ঠার তাই বেশ সংখ্যক পাশ্ব চরিত্র রয়েছে। এতবড় বই তবুও কোথাও আগ্রহী কমেনি রহস্যঘেরা বইটি পড়ার সময়। বইয়ে তুলে ধরা হয়েছে বাস্তব জীবনের নির্মম সত্য ঘটনা। সাবলীল লেখার মাঝে নিজেকে মিশিয়ে নিয়ে পুরো উপন্যাস শেষ করেছি। বইটি আবার পড়ার আগ্রহ দ্বিগুণ বেড়ে গেছে। বইটি পড়লে ধনী -গরিব সমাজে চিত্র দেখা যায়।দেখা যায় সুন্দর যুগল ভালোবাসার।
এককথায় অসাধারণ বইটি। বইটি পড়ার সময় বোরিং লাগেনি একটুও। পুরোটা সময় মনোযোগ দিয়ে পড়তে পেড়েছি উপন্যাসের মাঝে টুইস্ট এর জন্য।

মন্তব্য : সাবলীল ভাষায় লেখা চমৎকার একটা উপন্যাস “যে গল্প আজও ছাপা হয়নি “। যতো মন্তব্য করবো কম হয়ে যাবে।আমার পড়া সেরা একটি উপন্যাস।

বিঃদ্রঃ আমি আসলে বইয়ের রিভিউ লিখতে পারিনা। তবে বইটি এতটা ভালো লেগেছে তাই অনুভূতি প্রকাশ না করে থাকতে পারলাম না। অগোছালো শব্দে বলে গেলাম অনুভূতির কথা গুলো।

ধন্যবাদ সবাইকে। বইটি পড়ে দেখতে পারেন।

মায়া রহমান ইরা
শিক্ষার্থী
মিরপুর মহিলা কলেজ, কুষ্টিয়া

Facebook Comments Box

Please Share This Post in Your Social Media

এ জাতীয় আরও খবর